সুফিয়া কাঙ্গালি – বঞ্চিত নারীদের কথা

তার গানের মাধ্যমে নিপীড়িত এবং সুবিধাবঞ্চিত নারীদের কঠিন বাস্তবতার কথা উঠে আসে। তিনি একজন সুপরিচিত লোক গায়ক, পাশাপাশি একটি সামাজিক মিশন আছে। তার সাধারণ থিম নারীদের দৈনন্দিন মুখোমুখি যে বৈষম্য, নিপীড়ন ও শোষণ হয়, সেটাই তুলে ধরা।

সুফিয়া কাঙ্গালি (বর্তমানে রাজবাড়ি জেলার) বৃহত্তর ফরিদপুর রামদিয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। একটি দরিদ্র হিন্দু পরিবারে তিনি মানুষ হন। তার পিতা খোকন হালদার ও মা তুলু হালদার।

তিনি ছোটবেলা থেকে গান পাগল ছিলেন। অল্পবয়সী মেয়ে হিসাবে, তিনি তার সহকর্মীরা বাদে নিজ পায়ে দাঁড়াবার চেষ্টা করেন। ১৪ বছর বয়সে তিনি গ্রামের ফাংশন এ গাওয়া শুরু করেন এবং অনুনাদী সাধুবাদ সঙ্গে গৃহীত হয়েছে। তিনি সুধীর হালদার বিয়ে করেন, মুক্তিযুদ্ধের তিন বছর পর।

তার গানের ধরন, তাল অন্য শিল্পি থেকে ভিন্ন। তাদের গানের সাথে শরিলের তাল সত্যিই অসম। তিনি প্রথমে ফরিদপুর সুপরিচিত উস্তাদ হালিম বয়াতি ও আয়নাল বয়াতির তালিম গ্রহণ করেন।

মুস্তাফা মনোয়ার শিল্পকলা একাডেমীর সাবেক ডিজি, তার “কাঙ্গালি সুফিয়া” নামকরণ করেন এবং সে পরবর্তীতে সারা দেশে এই নামের খ্যাতি সাধিত।

কাঙ্গালি সুফিয়া বাংলাদেশ বেতার ও বিটিভি এর নিয়মিত শিল্পী। বিভিন্ন প্রাইভেট চ্যানেল গুলোতেও তার গান পরিবেশন হয়। এছাড়া বাংলাদেশ থেকে তিনি যুক্তরাজ্য, দক্ষিণ কোরিয়া, কাতার, ইতালি, হংকং, মার্কিন, থাইল্যান্ড, চীন ও ভারতের মধ্যে সম্পাদিত হয়েছে। তিনি সাধারণত বাউল জাহাঙ্গীর, বাউল মান্দেরের ফকির, পুস্প (সোফিয়া এর বোন), চুমকি কাঙ্গালি (সুফিয়া নাতনী) ও বিলকিস বানু পাঁচ সদস্যের দল সঙ্গে সঞ্চালিত।

সুফিয়া এর দ্বিতীয় স্বামী বাউল সেকম একটি দোতারা প্লেয়ার নিয়া তিনি কাজ করেন এবং লন্ডনে বসবাস করেন।

সুফিয়া সবচেয়ে বেশী জনপ্রিয় হয়েছেন যে সব গানেঃ “নারীর কাছে কেও যাইওনা”, “নারীর কোলে জন্ম নিয়া ঠেকলাম বিষণ দায়”, “বন্ধু বিচ্ছেদ”, “অন্তকথা”, “পরানের বান্ধব রে” এবং “কোনবা পথে নিতায় গঞ্জ যায়”।

লেজার ভিশন, সাউন্ডটেক, সংগীতা, কনকর্ড স্টুডিও থেকে অনেক গান রিলিজ হয়েছে। সে কিছু ছবিতেও গান করছেন “দরদি শত্রু”, “আগুন” এবং “রাজ সিংহাসন”।

কাঙ্গালি সুফিয়াকে শেখ হাসিনা এবং খালেদা জিয়া উভয় খুব ভালবাসেন।

কাঙ্গালি সুফিয়া বলেন,
আমি অভিভূত আমার পাগল ভক্তদের দেখে এবং যারা আমার গান গাওয়ার সুযোগ করে দিচ্ছে।