রোজিনা রাজবাড়ীর আলোকিত সন্তান

রোজিনা একজন বাংলাদেশী চলচ্চিত্র অভিনেত্রী। ঢালিউডের আশির দশকের জনপ্রিয় নায়িকা রোজিনা। চলচ্চিত্রে আসার আগে তিনি ঢাকায় মঞ্চ নাটক করতেন। তখন তিনি বেশ কিছু বিজ্ঞাপনে কাজ করেছেন।

রোজিনা রাজবাড়ী জেলার গোয়ালন্দে নানা বাড়িতে জন্মগ্রহন করেন। রাজবাড়ীতেই নিজস্ব বাড়ী। শিশু ও কৈশোর সময়টা কেটেছে নিজ বাড়ী রাজবাড়ী শহরেই। পিতা দলিল উদ্দিন এবং মা খোদেজা বেগম। দলিল উদ্দিন ছিলেন একজন ক্ষুদ্র ব্যবসায়ি,মা গৃহিনী। তারা চার বোন ও দুই ভাই। রোজিনার পারিবারিক বা প্রকৃত নাম রেনু। তার স্বামী আনোয়ার শরীফ। মরহুম চিত্র প্রযোজক ফজলুর রশিদ ঢালী তার স্বামী ছিলেন।

১৯৭৭ সালে মহসীন পরিচালিত আয়না ছবিতে তিনি ছোট একটি চরিত্রে শায়লা নাম নিয়ে প্রথম দর্শকের সামনে আসেন। এফ কবীর চৌধুরী পরিচালিত রাজমহল ছবিতে নায়িকা হিসেবে তার অভিষেক হয়। নাম পরিবর্তন করে রাখা হয় রোজিনা। এই ছবিতে তার বিপরীতে অভিনয় করেছিলেন সেই সময়ের জনপ্রিয় নায়ক ওয়াসীম। ছবিটি ১৯৭৮ সালে মুক্তি পায়। ছবিটি সুপার ডুপার হিট ব্যবসা করায় রোজিনাকে আর ফিরে তাকাতে হয়নি। পুরো আশির দশকে রোজিনা ছিলেন ঢালিউডের চাহিদা সম্পন্ন নায়িকা। ১৯৯০ সাল পর্যন্ত তার অভিনীত ছবির সংখ্যা দাড়ায় ২৫৫টি। ১৯৯০ সালের পর তিনি কোলকাতায় পাড়ি জমান এবং সেখানে প্রায় ২০ টি সফল ছবিতে নায়িকা হিসাবে অভিনয় করেন। ২০০৬ সালে রোজিনা ঢাকায় ফিরে আসেন। তারপর ইমপ্রেস টেলিফিল্ম প্রযোজিত রাক্ষুসী ছবিতে তিনি অভিনয় করেন।

উল্লেখযোগ্য ছবি:

  1. জানোয়ার।
  2. রাজমহল।
  3. মাটির মানুষ।
  4. অভিযান।
  5. শীর্ষনাগ।
  6. চম্পা চামেলী।
  7. মোকাবেলা।
  8. সংঘর্ষ।
  9. আনারকলি।
  10. রাজনন্দিনী।
  11. রাজকন্যা।
  12. শাহী দরবার।
  13. আলীবাবা সিন্দবাদ।
  14. সুলতানা ডাকু।
  15. যুবরাজ।
  16. রাজসিংসন।
  17. শাহীচোর।
  18. দ্বীপকন্যা।
  19. জিপ্সী সরদার।
  20. কসাই।
  21. জীবনধারা।

১৯৮০ সালে রোজিনা কসাই ছবির জন্য জাতীয় পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ পার্শ্ব অভিনেত্রীর পুরস্কার লাভ করেন। ১৯৮৮ সালে তিনি জাতীয় পুরস্কার পান শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী হিসেবে জীবন ধারা ছবির জন্য। শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী হিসেবে তিনি বাচসাস পুরষ্কারও লাভ করেন। রোজিনা দিনকাল ছবিতে অভিনয়ের জন্য জাতীয় চলচ্চিত্র পুরষ্কার অর্জন করেন। ১৯৮৬ সালে পাকিস্তানে হাম দো হায় ছবিতে অভিনয়ের জন্য জার্মানিতে নিগার এ্যাওয়ার্ড লাভ করে ভারতীয় উপ-মহাদেশে চমক সৃষ্টি করেন এবং বাংলাদেশের জন্য সুনাম বয়ে নিয়ে আসেন। রোজিনা তৎকালীন ভারতের জনপ্রিয় নায়ক মিঠুন,পাকিস্তানের জনপ্রিয় নায়ক নাদিমসহ ভারতীয় উপমহাদেশের বিখ্যাত বহু অভিনেতার বিপরীতে নায়িকা হিসাবে অভিনয় করেছেন। অভিনয়ের জন্য চিত্রনায়িকা রোজিনা ভারত, পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কাসহ বিভিন্ন দেশ হতে ছোট বড় প্রায় ১৫ টি অন্তর্জাতিক পুরষ্কার লাভ করে নজির সৃষ্টি করেন।
তিনি শরৎচন্দ্র ও নজরুল ইসলামের লেখা কাহিনী ও গল্প নিয়ে ষোড়শী,মেজদিদি,বনের পাপিয়া সহ ইত্যাদি গঠনমূলক নাটক নির্মাণ করেছেন। কবি কিংকর চৌধুরীর কাহিনী অবলম্বনে বদনাম নামের একটি ধারাবাহিক নাটকও নির্মাণ করেছেন। রোজিনা চ্যানেল আইয়ের জন্য মুক্তিযুদ্ধ ভিত্তিক নাটক আলোর পথের যাত্রী নির্মাণ করেন।

তথ্যসূত্র: মোঃ সাইফুল ইসলাম রকি, রাজবাড়ি ইনফো।