কাজী আবদুল ওদুদ – বাঙালি সাহিত্যিক ও শিক্ষাবিদ ভাষা

কাজী আবদুল ওদুদ (২৬ এপ্রিল ১৮৯৪–১৯ মে ১৯৭০) একজন বাঙালি প্রাবন্ধিক, বিশিষ্ট সমালোচক, নাট্যকার ও জীবনীকার ছিলেন। তিনি বৃহত্তর ফরিদপুর (বর্তমান) রাজবাড়ী, পাংশা, একটি নিম্ন – মধ্যবিত্ত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতার নাম ওরফে কাজী সৈয়দ হোসেন কাজী।

শিক্ষা জীবন সম্পাদনা

১৯১৩ সালে তিনি ঢাকা কলেজিয়েট স্কুল থেকে ম্যাট্রিকুলেশন পাশ করেন । তারপর তিনি আইএ এবং বিএ পাশ করেন প্রেসিডেন্সি কলেজ, কলকাতা থেকে। অর্থনীতিতে এমএ পাশ করেন কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে।

অবদান সম্পাদনা

১৯২৬ সালে তিনি ঢাকা মুসলিম সাহিত্য সমাজের প্রতিষ্ঠাতা এবং তিনি অজ্ঞতা থেকে বুদ্ধির মুক্তি আন্দোলনের নেতৃত্ব দেন কিছু তরুণ লেখকদের সঙ্গে। তার সংবাদপত্র শিখা আন্দোলনের বেগ বৃদ্ধি করতে সাহায্য করেছিল। সৈয়দ আবদুল হোসেন ও কাজী মোতাহার হোসেন এই আন্দোলনে যোগ দেন।কাজী আবদুল ওদুদ ঘনিষ্ঠভাবে বাঙালি মুসলমান সাহিত্য আন্দোলনের সাথে সম্পর্কিত ছিলেন। ১৯৭০ সালে তিনি ‘শিশির কুমার পদক’ লাভ করেন।

পেশা সম্পাদনা

তিনি কলকাতা পাঠ্যপুস্তক বোর্ড এ চাকরি নেন। তারপর ১৯২০ সালে তিনি সাহিত্যের অধ্যাপক হিসেবে ঢাকা ইন্টারমিডিয়েট কলেজে (বর্তমানে ঢাকা কলেজ) যোগদান করেন। ১৯৪৭ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় তাকে শিক্ষকতার জন্য প্রস্তাব দেয় কিন্তু তিনি কলকাতায় লেখার জন্য আরো সুযোগ পেয়েছেন এবং তার জীবনের বাকি সময়টুকু সেখানেই কাটান।

বিবাহ সম্পাদনা

১৯১৬ সালে তিনি তার চাচার বড় মেয়ে জামিলা খাতুনকে বিয়ে করেন। জামিলা খাতুন ১৯৫৪ সালে মারা যান।

প্রবন্ধ সম্পাদনা

… (১৯৫১)

সমাজ ও সাহিত্য (১৯৩৪)
রবিন্দ্রকাব্য পাঠ (১৩৪৩)
হিন্দু-মুসলমান বিরোধ (১৯৩৬)
নব পর্যায় (২খণ্ড)

অন্যান্য বইসম্পাদনা

শাশ্বত বঙ্গ
মির পরিবার (গল্প), ১৯১৮
পথ ও বিপথ (নাটক), ১৩৪৬
আজাদ (উপন্যাস), ১৯৪৮
নদীবক্ষে (উপন্যাস), ১৯৫১

তার সম্পাদনায় প্রকাশিত জনপ্রিয় বাংলা অভিধান – ব্যবহারিক শব্দকোষ।